সিলেটে চালকদের মনে আতঙ্ক বিরাজ করছে

প্রকাশিত: ১:১৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৭, ২০১৯

সিলেটে চালকদের মনে আতঙ্ক বিরাজ করছে

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: নতুন ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ কার্যকর হয়েছে নভেম্বরের প্রথম দিন থেকে। এরপর পেরিয়ে গেছে ছয়দিন। তবে পাস হওয়া বহুল আলোচিত সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর করার আগে ও পরে সিলেটের সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মাঝে কোনো ধরনের প্রচার-প্রচারণা চালানোর দৃশ্য চোখে পড়েনি।

অবশ্য ট্রাফিক পুলিশ বলছে, সিলেটে মাইক যোগে প্রচারনা করা হচ্ছে। তবে অনেক চালক-পথচারীদের সাথে আলাপকরে জানা গেছে, নতুন আইন সর্ম্পকে তেমন ঢালাওভাবে প্রচারনা করা হচ্ছে না।

অন্যদিকে আইনটি কার্যকর হবার পর থেকেই সিলেটের সড়কে কমে গেছে গাড়ির সংখ্যা। অনেকইে আইন সর্ম্পকে ধারণা নেই। এ নিয়ে অনেক চালকদের মনে আতঙ্কও বিরাজ করছে। অনেকে আবার প্রয়োজনী কাগজপত্র ঠিক ঠাক করাতে দৌঁড়ঝাপ করছেন বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র (বিআরটিএ) সিলেট অফিসে।

চালক ও পথচারীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এই আইনের বিধি-বিধান সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা নেই তাদের। আবার যাদের বিরুদ্ধে এই আইনের বিধান কার্যকর হবে তাদের কেউ অবগত নয় শাস্তি সম্পর্কে। আবার পুলিশী হয়রানীর আশঙ্কাও প্রকাশ করেছেন নগরের বাসিন্দারা।

আইন কার্যকর হলেও সিলেটের অধিকাংশ জায়গায় সড়কে এর কোনো প্রতিফলন দেখা যায়নি। আগের মতো নানা অনিয়ম চোখে পড়েছে।

নগরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে সড়কে শৃঙ্খলার লেশ মাত্রও নেই। সড়কের উল্টো পথে চলা আগের মতোই রয়ে গেছে। আর হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালক দেখা গেছে নগরের সর্বত্রই!

আইন প্রয়োগে চালক ও পথচারীদের সবচেয়ে বেশী ভূমিকার প্রয়োজন মন্তব্য করে সিলেট মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা বলেন, ‘সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে সিলেটের পুলিশ প্রশাসন দীর্ষ দিন থেকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে। পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকেও বিভিন্ন সময় নানা উদ্যোগ গ্রহন করা হয়ে থাকে। চালকদের ভয় পাওয়া কোন কারণ নেই। যারা আইন মানবে তাদের জন্য চলতে ফিরতে কোন বাধা আসবে না।’ আগের তুলনায় সড়ক অনেকটাই শৃঙ্খল বলে দাবি করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফরুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন,নতুন সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়নে বসচেয়ে বেশী প্রয়োজন প্রচারণার। সবাইকে এই আইনের কথা জানাতে হবে। তাহলেই আইনের সঠিক প্রয়োগ হবে বলে আমি মনে করি।

সিলেট নগরের জিন্দাবাজারের ব্যবসায়ীর আলীম উদ্দীনের সাথে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে কথা হলে তিনি জানান, ‘পরিবহণের যে নতুন আইন পাশ হয়েছে শুধু শুনেছি। তবে এই আইনে কি লিখা আছে আমি জানিনা। আইন মানতে হলে আমাদের আগে জানতে হবে। আর সিলেট শহরে ট্রাফিক বিভাগের পক্ষে থেকে এখনও কোন প্রচারনা চোখে পড়েনি।

এ ব্যাপারে সিলেট পুলিশের উপকমিশনার (ট্রাফিক) নিকুলিন চাকমা বলেন, ‘নতুন আইন নিয়ে শহরে মাইক যোগে প্রচারনা হচ্ছে। প্রথম সপ্তাহে আমারা শুধু সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করছি। এর পাশাপাশি যানজট নিরসনের ক্ষেত্রে সিরিয়াসভাবে কাজ করছি। নগরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে আমাদের ট্রাফিক পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করছে। তবে আমাদের পর্যাপ্ত পরিমান ট্রাফিক পুলিশ নেই। এই কারণে যানজট নিরসনে কিছুটা ব্যাঘাত হচ্ছে।’

এসময় তিনি জানান, সিলেট মহানগর ট্রাফিক শাখায় এখন ২১২ জন সদস্য কর্মরত আছেন। আরও অন্তত ১০০ সদস্য প্রয়োজন।

সিলেটপ্রেসডটকম /০৭ নভেম্বর ২০১৯/ রাকিব হাসান

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ