কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে শিবগঞ্জের কামার পল্লীতে ব্যস্ততা বেড়েছে

প্রকাশিত: ৭:৪৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৭, ২০১৯

কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে শিবগঞ্জের কামার পল্লীতে ব্যস্ততা বেড়েছে

রবিউল ইসলাম রবি (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কামার পল্লীতে বেড়েছে ব্যস্ততা। কামারদের যেন দম ফেলার সময় নেই।
সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুড়ে দেখা যায়, কাক ডাকা ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন কামার পল্লীতে লোহার সাথে হাতুরির টুং টাং শব্দে মুখরিত হয়ে উঠেছে। উপজেলার প্রায় ২৪টি স্পষ্টে কামাররা ব্যস্ত সময় পার করছে ধারালো ছুড়ি, বটি ও দা বানানোর কাজে। কোরবানির আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। ঈদের দিন চাহিদামত কশাই না পাওয়াই দেশের সিংহভাগ পশু কোরবানিদাতা নিজেরাই নিজেদের পশু কোরবানির কাজটি করেন। তাই তাদের এ কাজের অন্যতম অনুষঙ্গ ধারালো ছুড়ি, বটি ও দা। ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে এসব ধাতবযন্ত্রের জন্য যেতে হয় কামার পল্লীতে। আবার অনেকে এসব সরঞ্জামে শান দিতেও ভিড় করছেন কামার পল্লীতে। জানতে চাইলে উপজেলা সদরের প্রদীপ কর্মকার বলেন, বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে কোরবানির সময়টাতে আমাদের কাজের চাপ অনেক বেড়ে যায়। পৌর সিএনজি স্ট্যান্ড এর নূপুর কর্মকার বলেন, কোরবানির ঈদ উপলক্ষে এক মাস কাজের চাপ থাকলেও পরবর্তী ১১ মাস তেমন কাজ হয়না। এই কারনে অনেকে বাধ্যহয়ে এ পেশা বাদ দিয়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে। উপজেলার নাগরবন্দরের মিলন কর্মকার বলেন, বর্তমানে কোরবানির কাজে ব্যবহৃত রাম দা প্রকার ভেদে ৫০০শ থেকে ৬০০শ টাকা, বটি ২০০শ থেকে ৩০০শ টাকা, বড় চাকু/ছুড়ি ৪০০শ থেকে ৫০০শ টাকা, ছোট চাকু/ছুড়ি ৫০ থেকে ২০০শ টাকা দামে বিক্রয় হচ্ছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Send this to a friend