বাবার হাতে ক্ষমতা ফিরবেই: নওয়াজকন্যা

 
 

yty

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির রায়ে সুপ্রিম কোর্ট পদে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করায় সরে দাঁড়িয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। তবে তিনি আবারও ক্ষমতায় ফিরবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন তার কন্যা মরিয়ম নওয়াজ শরিফ।

মরিয়ম এক প্রতিক্রিয়ায় দেশটির গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আজকে সর্বোচ্চ আদালতের এই রায় তাকে (নওয়াজ শরিফ) ২০১৮ সালের নির্বাচনে জয়ের পথ সুগম করে দিল। বাবার হাতে আবারও ক্ষমতা আসবে। তাকে কেউ থামাতে পারবে না। তিনি ক্ষমতা ফিরে পাবেনই।’

গতকাল শুক্রবার দেশটির সর্বোচ্চ আদালত নওয়াজ শরীফকে অযোগ্য ঘোষণা করার পর এসব কথা বলেন নওয়াজকন্যা।

একই দিন রায় প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই এক টুইট বার্তায় মরিয়ম বলেন, ‘আরও একজন নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতাচ্যুত করা হল; কিন্তু শিগগিরই বেশি শক্তি ও সমর্থন নিয়ে তিনি ফিরে আসবেন। আপনারা পিএমএলএন-এর সঙ্গেই থাকুন। আপনার কেন দুঃখ পাবেন। এই প্রথমবারের মতো আপনার নেতাকে বহিষ্কার করা এবং বিচারের মুখোমুখি হতে হয়নি। এই ধরনের কাজটি তাকে আরও শক্তিশালী করেছে।’

পানামা পেপার্স কেলেঙ্কারির মামলার রায়ে নওয়াজ শরীফকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করেছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। একইসঙ্গে  বিপুল অঙ্কের বেনামি সম্পত্তি রাখার অভিযোগে পাক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দিয়েছে পাক সুপ্রিম কোর্ট।

রায় ঘোষণার পর পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক ডন জানায়, সুপ্রিম কোর্টের ৫ সদস্যের বেঞ্চ শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা নাগাদ সর্বসম্মতক্রমে এই রায় ঘোষণা করে।

এই রায়ের ফলে তৃতীয় মেয়াদে পাকিস্তানের সরকারপ্রধানের দায়িত্বে থাকা এই রাজনীতিবিদকে সরে দাঁড়াতে হলো। তবে তার পরিবর্তে কে পরবর্তী নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবে সেটা নিশ্চিত করা হয়নি। পাকিস্তানের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন ২০১৮ সালে হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নওয়াজ শরীফের ভাই শাহবাজ শরীফ। নওয়াজ শরীফের পদত্যাগের পর শুক্রবার এক বৈঠকে ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগ এ সিদ্ধান্ত নেয়।

উল্লেখ্য, শাহবাজ শরীফ ২০১৩ সাল থেকে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। পুরোদস্তুর ব্যবসায়ী শাহবাজ ১৯৮৮ সালে পাঞ্জাব প্রাদেশিক সভার সদস্য নির্বাচিত হয়ে রাজনীতিতে আত্মপ্রকাশ করেন। নওয়াজের আগের শাসনামলে ১৯৯৭ সালে শাহবাজ পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

১৯৯৯ সালে পারভেজ মোশাররফের নেতৃত্বে সামরিক শাসন জারি হলে তিনি সৌদি আরবে আশ্রয় নেন। পরে ২০০৭ সালে দেশে ফিরে আসেন শাহবাজ শরীফ।