ফ্রান্সের ট্রিবিসে জঙ্গি হামলা

 
 

21221

ডেস্ক রিপোর্ট ::  ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর ট্রিবিসের একটি সুপার শপে এক বন্দুকধারী ঢুকে পড়ে অন্তত একজনকে জিম্মি করেছে।ওই ঘটনায় একজন নিহত হয়েছে। তবে তিনি হামলাকারী কি না সে সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

লোকাল ফ্রান্সের খবরে বলা হয়েছে ওই শহর থেকে ১৫ মিনিট দূরত্বের কারকাসানো শহরে এক পুলিশ গুলিবিদ্ধ হয়েছে।তবে দুটি ঘটনার মধ্যে কোনও সংশ্লিষ্টতা আছে কি না তা জানা যায়নি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে দেশটির প্রসিকিউটরের বরাতে বলা হয়েছে, জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস সুপার শপে হামলার সঙ্গে জড়িত। গত বছরের অক্টোবরে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর এক রেল স্টেশনে হামলায় দুই নারী নিহত হয়।

ট্রিবিসের পরিস্থিতিকে ভয়ঙ্কর বলে বর্ননা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী এডোয়ার্ড ফিলিপ্পে। ঘটনাস্থলের পথে রয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরার্ড কলোম্ব। ফ্রান্সের বার্তা সংস্থা এএফপিকে এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেছেন, ট্রিবিসের সুপার শপে স্থানীয় সময় সকাল ১১.১৫ মিনিটে এক বন্দুকধারী ঢুকে পড়ার পর গুলির শব্দ শোনা যায়।

ফরাসি সংবাদপত্র লা দেপেচে দু মিদির খবরে বলা হয়েছে, আনুমানিক ৩০ বছর বয়সী সশস্ত্র হামলাকারীর সঙ্গে এক বা একাধিক গ্রেনেড রয়েছে। আর তিনি ‘সিরিয়ার প্রতিশোধ’ চান বলে চিৎকার করেছেন। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী বলেছেন, আল্লাহ আকবর বলেই গুলি ছোঁড়া শুরু করে ওই হামলাকারী।

বিবিসির খবরে ওই ঘটনায় একজন নিহত হওয়ার কথা বলা হলেও কয়েকটি ফরাসি সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সেখানে দুইজন নিহত হয়েছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। স্থানীয় পুলিশ প্রধান, জেন ভ্যালেরি লেটারম্যান বলেছেন, আমাদের ধারণা একজন মারা গেছেন তবে কোনও ডাক্তার নিয়ে সেখানে পরীক্ষা করা সম্ভব হয়নি। ওই এলাকা শত শত পুলিশ সদস্য ঘিরে ফেলেছে বলে জানান তিনি।

২০১৫ সালের পর থেকে বেশ কয়েকবার জঙ্গি হামলার শিকার হয়েছে ফ্রান্স। সে বছরের নভেম্বরে  প্যারিসে এক হামলায় ১৩০ জন নিহত হলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে ফ্রান্স। গত অক্টোবরে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। ওই মাসেই বন্দরনগরী মাসেই এর রেল স্টেশনে ছুরি হাতে ৩০ বছর বয়সী এই আফ্রিকান নাগরিক হামলা চালালে দুই নারী নিহত হয়। জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস হামলাকারীকে নিজেদের সদস্য বলে দাবি করে।