প্রবাসী গবেষক ও লেখক মোজাম্মেল হকের তিনটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

 
 

Boi prokashona 01বাঙ্গালীর স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীকার আন্দোলনের বিষয়গুলো ফুটে উঠেছে ড. মোজাম্মেল হক রচিত বইগুলোর মধ্যে। পরাধীন বাংলাদেশ তথা পূর্ব পাকিস্তানের প্রতি পশ্চিম পাকিস্তানের বিমাতাসুলভ আচরণ বর্ণনার ক্ষেত্রে লেখক অত্যন্ত দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি জীবনের নানা অভিজ্ঞতার আলোকে বাঙ্গালীর সাহিত্য ও সংস্কৃতিকেই তিনি প্রকাশ করেছেন।
হক ফাউন্ডেশন, শিবগঞ্জ, সিলেট-এর উদ্যোগে ইংল্যান্ড প্রবাসী বিশিষ্ট গবেষক ও লেখক মোজাম্মেল হকের তিনটি বই ‘কবিতা আমার প্রাণের ব্যথা’, ‘স্মৃতির পাতা থেকে’ এবং ‘ভাবনার দিগন্ত’-এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।

সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুকতাবিস-উন-নূরের সভাপতিত্বে ২ মে মঙ্গলবার সিলেটের একটি অভিজাত হোটেলে এই মোড়ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিশিষ্ট কবি ও আইনজীবি অ্যাডভোকেট কামাল তৈয়বের সঞ্চালনায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আতফুল হাই শিবলী, বিশিষ্ট শিক্ষাববিদ প্রফেসর ড. কবির চৌধুরী, এমসি কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল প্রফেসর শ্রীনিবাস দে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রোটারী পাস্ট ডিস্ট্রিক্ট গভর্নর ডা. মনজুরুল হক চৌধুরী, ব্রিটেন প্রবাসী ব্র্যান্ড কাউন্সিলের মেয়র পারভেজ আহমদ, এমসি কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক সালেহ আহমদ, সিলেট জেলা বারের সিনিয়র আইনজীবি এডভোকেট রাজ উদ্দিন, এডভোকেট আব্দুল মুকিত জাহাঙ্গীর, মকছুদ আহমদ খান।
অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা আবু তাহের মিসবাহ।
অতিথির বক্তব্যে নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আতফুল হাই শিবলী বলেন, প্রবাসীদের ব্যাপাওে সাধারণ জনগণের ধারণার আজ পরিবর্তন ঘটেছে। প্রবাসীরা এখন সমাজ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি প্রতিটি ক্ষেত্রেই অসামান্য অবদান রেখে চলেছেন। দেশ ও জাতির জন্য তাদের লেখাগুলো সমাজকে আলোকিত করবে।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. কবির চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ভয়াল ও ভয়াবহ কথাগুলো লেখায় রুপান্তর করে বাঙ্গালী সমাজ ও সভ্যতা এবং সার্বজনীন চেতনাকে ধারণ করেছেন লেখক ড. মোজাম্মেল হক। জাতির জন্য সেগুলো আলোকবর্তিতা হয়ে কাজ করবে।

এমসি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর শ্রীনিবাস বলেন, ড. মোজাম্মেল হকের লেখায় মানবতাবোধ যেভাবে ফুটে উঠেছে, তেমনি ফুটে উঠেছে দেশের প্রতি অকৃত্রিম মমত্ববোধ।
অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে লেখক ড. মোজাম্মেল হক বলেন, দেশের প্রতি প্রেম ও ভালোবাসা আমার লেখার ক্ষেত্রে প্রেরণা হিসেবে কাজ করে। পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের প্রতি পশ্চিম পাকিস্তানের অন্যায় অত্যাচার আমাকে চরমভাবে আঘাত করেছে। সেগুলোই বাঙ্গালীর সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে সম্মান জানানোর স্বার্থেই লেখার চেষ্টা করেছি।