প্রিয় মানুষকে যেভাবে বোঝাবেন কতটা ভালোবাসেন

 
 

00ভালোবাসা শব্দটি খুব ছোট হলেও এর ব্যপ্তি অনেক। প্রত্যকটি ভালোবাসার মানুষ চায় তার কাছের মানুষটির থেকে উজাড় করা ভালোবাসা আর বিশ্বাস। নিজের যতটুকু সামর্থ্য আছে প্রত্যকটি মানুষ চায় তার সর্বোচ্চ দিয়ে তার ভালোবাসার মানুষকে কাছে রাখতে। তবে আপনি যদি ভালোবাসার মানুষকে আপনার ভালোবাসার কথা না বলেন তবে হয়তো আপনার অনেক অনুভূতিগুলো শব্দহীন হয়ে থাকবে। কিছু ক্ষেত্রে অনেকে মনে মনে ভাবতে থাকে যে কেন ভালোবাসার কথা প্রিয় মানুষটির মুখে শুনছে না। আর এতে আপনিও মনে মনে কষ্ট পান। তাই সঙ্গীকে আপনার কার্যকলাপ দিয়ে বোঝান যে আপনি তাকে কতটা ভালোবাসেন।

ভালোবাসা প্রকাশের ভঙ্গী
ভালোবাসা প্রকাশের ধরন একেকজনের কাছে একেকরকম। কেউ ফুল হাতে প্রিয়ার হাতে হাত রেখে, আবার কেউ রাতের পর রাত জেগে কথা বলে, আবার কেউ খুদে বার্তা দিয়ে। যে যেভাবেই বলুক না কেন ভালোবাসা প্রকাশ হচ্ছে মূল বিষয়। তবে খেয়াল রাখুন যে আপনার সঙ্গী আপনার এই ভালোবাসা প্রকাশের ভঙ্গী বুঝতে পারছে কি না। তার কাছে এই প্রকাশভঙ্গী স্বাভাবিক লাগছে কি না? নাকি তা কেবলই আপনাকে খুশি করার জন্য আপনার হাতে হাত মেলাচ্ছে। আপনার ভালোলাগার সাথেসাথে তার ভালোলাগাগুলোকেও প্রাধান্য দিন। যেকোনো সারপ্রাইজ দেয়ার ক্ষেত্রে তাকে মাথায় রেখে প্ল্যান করুন।

মনযোগ দিয়ে কথা শোনা
প্রায় সময়েই ভালোবাসার মানুষের কাছে অপর পক্ষের মানুষটির একটিই আবদার থাকে। তা হচ্ছে সে যেন তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনে। ভালোবাসার মানুষটির সাথে থাকলেও দেখা যায় অনেক কাজে ব্যস্ত থাকা হয়। কখনো তা ফোনে আবার কখনো তা মেইলে। কাছের মানুষটির কথা ইচ্ছে থাকলেও মনোযোগ দিয়ে শোনা হয় না। আর যাতে সৃষ্টি হয় দূরত্ব। তাই যতটুকু সময় সম্ভব হয়, তার কথা শুনুন মনযোগ দিয়ে।

পরস্পরকে সময় দিন
সময় দেওয়া একটি সম্পর্কে অনেক বড় কিছু। আপনি আপনার প্রিয় মানুষটিকে কতটুকু ভালোবাসেন তা সময়ের ওপর অনেকাংশে নির্ভর করে। সম্পর্কে মাঝে একে অন্যকে কিছুটা সময় দেওয়া প্রয়োজন। এতে পরস্পরের প্রতি ভালোবাসা যেমন বোঝা যায় তেমনি তা বাড়ে কয়েকগুণ। কাছাকাছি থাকা হলে অনেক সময় একে অন্যর গুরুত্ব বোঝা যায় না। যা বোঝা যায় কেবল দূরে থাকলে। তাই সম্পর্কে মাঝে মধ্যে ইচ্ছে করেই একটু দূরত্ব বাড়ান। তবে তা সময় এবং অবস্থান বুঝে। আর তারপর আবার কাছাকাছি এসে বোঝান যে আপনি তাকে কতটা ভালোবাসেন!