কঠোর নিরাপত্তায় লাহোরে বিশ্ব একাদশ

 
 

5566

স্পোর্টস ডেস্ক :: নানা জ্বল্পনা-কল্পনা আর শঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে লাহোর পৌঁছে গেল বিশ্ব একাদশ। পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে আইসিসির উদ্যোগে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বিশ্ব একাদশ ও পাকিস্তান জাতীয় দল। অভূতপূর্ব নিরাপত্তার ঘেরাটোপের মধ্যেই সোমবার বিমান বন্দর থেকে টিম হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয় বিশ্ব একাদশের ক্রিকেটারদের। যে দলের নেতৃত্বে রয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ফ্যাফ ডু প্লেসিস। শহরের যে হোটেলে দলটিকে রাখা হয়েছে তার চারদিকে সব রাস্তায় আগে থেকেই গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড ও আইসিসি আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, বিমান বন্দরে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না দলের কেউ। বিমান বন্দর থেকে হোটেল- সমস্ত রাস্তা চলে গিয়েছে নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে। প্যারা মিলিটারি রেঞ্জার্স ও পুলিশ কমান্ডো দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়েছে বিশ্ব একাদশের ক্রিকেটারদের যাতায়াতের সব রাস্তা।

২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা দলের ক্রিকেটারদের ওপর জঙ্গি হামলার পর থেকে কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা হয়নি পাকিস্তানের মাটিতে। আইসিসিও আম্পায়ার পাঠাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছিল। এর মধ্যেও লিমিটেড ওভারের সিরিজ খেলতে ২০১৫তে একবারই পাকিস্তানে গিয়েছিল জিম্বাবুয়ে।

সেপ্টেম্বর ১২, ১৩ ও ১৫-তে (মঙ্গলবার, বুধবার এবং শুক্রবার) তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা হবে গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। বিশ্ব একাদশের ১৫ জনের দলে দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটাররা রয়েছেন।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান নাজম শেঠি বলেন, ‘পাকিস্তানের ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য এটা সবে শুরু। যারা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য মুখিয়ে রয়েছে। এরপর অক্টোবর ও নভেম্বরে শ্রীলঙ্কা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজও আসবে।’

দুই দেশই তাকিয়ে বিশ্ব একাদশের পাকিস্তান সফরের দিকে। এই সফর যদি ভালমতো শেষ হয় তাহলে আর পাকিস্তান সফরে কোনও ভয় থাকবে না। এই সফরের আগে আইসিসির নিরাপত্তা বিষয়ক কর্মকর্তারা দু’বার পাকিস্তান ঘুরে নিরাপত্তার বিষয়টি খতিয়ে দেখেই সবুজ সঙ্কেত দিয়েছে।

তবে বিশ্ব একাদশের বিরুদ্ধে দেশের হয়ে খেলতে পারছেন না মোহাম্মদ আমির, শাদাব খান এবং ফাখর জামান। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে এই তিনজনই ছিলেন সবচেয়ে সফল পারফরমার। লন্ডন থেকে আর দেশে ফেরা হয়নি আমিরের। এসেক্সের হয়ে কাউন্টি খেলতে ব্যস্ত তিনি।