‘উন্নয়নের মহাসড়কে শুধু পানি আর পানি’

 
 

6768

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: রাজধানীর জলজটের জন্য সরকারের সমালোচনা করে জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘সরকার কথায় কথায় বলে দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। আমরা তো দেখি এখন মহাসড়কে শুধু পানি আর পানি।’

শনিবার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে জাপার যৌথ সভায় এসব কথা বলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সভায় বিশেষ অথিথি ছিলেন জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ। এতে সারাদেশ থেকে আসা কয়েক হাজার নেতাকর্মী অংশ নেন।

দেশের সার্বিক পরিস্থিতির জন্য আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে দায়ী করেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ। তিনি বলেন, দেশের সব কিছুতে জট লেগেছে। উন্নয়নে জট, চাকরিতে জট, রাস্তাঘাটে জট, দুনীর্তিতে জট। আওয়ামী লীগ-বিএনপি এ জট লাগিয়েছে। জট খুলতে তিনি আগামী নির্বাচনে জাপাকে ভোট দিতে দেশবাসীকে অনুরোধ করেন।

সংসদে প্রধান বিরোধী দলের আসনে বসলেও সরকারের অংশীদারিত্ব রয়েছে জাপার। দলটির তিনজন নেতা মন্ত্রিসভার সদস্য। এরশাদ যৌথ সভায় দলীয় মন্ত্রীদের উপস্থিতিতেই সরকারের সমালোচনা করেন। সাবেক এ সেনাশাসক দাবি করেন, সরকার যতটা উন্নয়নের প্রচারণা চালাচ্ছে, আদতে ততটা হয়নি।

এরশাদ বলেন, ‘সরকার কথা কথায় বলে দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। আমরা তো দেখি এখন মহাসড়কে শুধু পানি আর পানি। পানি দিয়ে সরকার কী উন্নয়ন করছে তা তো দেশের মানুষ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে।’

তিনি বলেন, মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। চারদিকে দুর্নীতি আর সন্ত্রাস। ব্যাংকের টাকা লুট হচ্ছে, কিন্তু সরকার কিছু করছে না। ঢাকা শহর বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে। চারদিকে অশান্তি। এর থেকে দেশের মানুষকে বাঁচাতে হবে।

গত এপ্রিলের জাপার নেতৃত্বে সম্মিলত জাতীয় জোট (ইউএনএ) নামে ৫৮ দলের ঢাউস একটি জোটের আত্মপ্রকাশ হয়। এরশাদ জানান, জোটের ব্যানারেই আগামী নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে জাপা। তিনি বলেন, নির্বাচনী প্রস্তুতি হিসেবে আগামী তিন মাস সারা দেশে জাতীয় পার্টি ও জোটের ব্যানারে সভা সমাবেশ হবে। আগামী নভেম্বর মাসে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জোটের পক্ষে মহাসমাবেশ করার ঘোষণা দেন এরশাদ।

যৌথসভায় বক্তৃতা করেন জাপার কো চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সালমা ইসলাম এমপি, সৈয়দ আব্দুল মান্নান, রত্না আমিন হাওলাদার এমপি, মীর আবদুস সবুর আসুদ প্রমুখ।