ইতালিতে ক্রিকেট নিষিদ্ধ!

 
 

65656

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: ইতালিয়ান একটি শহরে ক্রিকেট খেলাকে নিষিদ্ধ করেছে ওই শহরের মেয়র। আফগান এবং পাকিস্তানি অভিভাসিদের কয়েকটি ছেলে একটি পার্কে ক্রিকেট খেলছিল। এ সময় একটি বল গিয়ে আঘাত হানে পার্কের পাশের বিল্ডিংয়ের বেলকনিতে দাঁড়ানো আরেকটি কিশোরের মাথায়। এ ঘটনায় পুরো শহরেই ক্রিকেট খেলা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন মেয়র। ইউরোপিয়ান কয়েকটি মিডিয়ায় প্রকাশ হয়েছে এই খবর।

বোলজানো নামে উত্তর ইতালির শহরটিতে ঘটেছে এই ঘটনা। বিবিসি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, এক বালকের মাথায় বলের আঘাত লাগার কারণে শহরটির মেয়র সেখানকার পার্কগুলোতে ক্রিকেট খেলা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।

যে পার্কে পাকিস্তানি এবং আফগানি অভিবাসি ছেলেরা খেলছিল, তার চেয়ে প্রায় ১০০ মিটার দুরে বাড়ির বেলকনিতে দাঁড়িয়েছিল সেই ছেলেটি। এ কারণেই বল গিয়ে আঘাত হানে তার মাথায়। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর আঘাতের ধকল থেকে মুক্তি মেলে তার।

শুধু পার্কেই নয়, টেনিস কোর্ট এবং বেজবল মাঠেও ক্রিকেটকে নিয়ন্ত্রণ করছে বোলজানো কর্তৃপক্ষ। মেয়র রেনজো কারামাচ্চি বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞাটা আরোপ করা হয়েছে, যখন একটি ছেলের বাবা-মা ইমেইলের মাধ্যমে আমাকে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন, এরপরই। তারা জানান, ক্রিকেট বলের আঘাতে আহত হয়েছে তাদের ছেলে।

ইতালিতে এমনিতেই ক্রিকেট একেবারেই অপরিচিত একটি খেলা। খুব কম মানুষই ক্রিকেট চেনে, খেলা তো দুরে থাক। যে ক’জন মানুষ সেখানে ক্রিকেট খেলে তারা পাকিস্তান কিংবা আফগানিস্তানের অভিবাসি। কারামাচ্চি বলেন, ‘আমরা খুব দ্রুতই এ বিষয় নিয়ে পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান কম্যুনিটির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসবো এবং করনীয় ঠিক করবো।’

ইতালির কোরিয়া দেলা সেরা ডেইলি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে যে, ইত্তর ইতালির আরও একটি শহর, ব্রেসসিয়া। ২০০৯ সালেই জনসমুক্ষে ক্রিকেট খেলাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।

বোলজানো শহরটি অস্ট্রিয়া সীমান্ত ঘেঁষে পাহাড় বেষ্টিত। যেখানকার ভাষা মূলতঃ জার্মান। জার্মানরা একে সাউথ টাইরল নামে ডেকে থাকে। ২০১৫ সালের অক্টোবরে অল্টো অ্যাডি ওয়েবসাইটে বলা হয়, বোলজানো শহরটিতে ৯০০ পাকিস্তানির বসবাস। পুরো এলাকায় প্রায় ৩০০০ অভিবাসির বসবাস। আফগানি রয়েছে প্রায় ১০০ থেকে ৩০০।