অযোগ্য ঘোষণার পর নওয়াজ শরিফের পদত্যাগ

 
 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: নওয়াজ শরিফকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করেছে দেশটির সর্বোচ্চ আদালত। শুক্রবার এই রায় ঘোষণা করা হয়। এ রায়ের কিছুক্ষণ পরই প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে জানানো হয়, নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন নওয়াজ।

গত বছর পানামা পেপার্সে প্রকাশিত লাখ লাখ গোপন নথিতে বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক নেতা ও শীর্ষ ব্যবসায়ীদের গোপন সম্পদের তথ্য ফাঁস হয়। ওই সব নথিতে নওয়াজ শরিফের মেয়ে মরিয়ম এবং ছেলে হাসান ও হুসেইন নওয়াজের নামে অন্তত আটটি অফশোর কোম্পানি থাকার তথ্য চলে আসে। অভিযোগ ওঠে নওয়াজের পরিবার দেশ থেকে টাকা পাচার করে যুক্তরাজ্যে সম্পদ গড়েছে । বিরোধী দলগুলোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের শেষ দিকে সুপ্রিম কোর্ট এ ব্যাপারে তদন্তের নির্দেশ দেয়। যৌথ তদন্ত দলের (জেআইটি) ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, নওয়াজ ও তার পরিবারের সদস্যরা তাদের নামে থাকা বিপুল পরিমাণ সম্পদের উৎস জানাতে ব্যর্থ হয়েছেন।

শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর ১২টার দিকে বহুল প্রতীক্ষিত এই মামলার রায় ঘোষণা শুরু করে সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ।

বিচারপতি এজাজ আফজাল খানের নেতৃত্বাধীন এই বেঞ্চ সর্বসম্মতভাবে নওয়াজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অযোগ্য ঘোষণা করেন। আদালত একইসঙ্গে নওয়াজ ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন

আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, নওয়াজ শরিফ পার্লামেন্ট ও আদালতের প্রতি অসৎ আচরণ করেছেন এবং তিনি তার পদ ধরে রাখার যোগ্য নন। রায়ে অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার এবং জাতীয় পরিষদের সদস্য ক্যাপ্টেন মুহাম্মদ সফদার, নওয়াজের কন্যা মরিয়ম, ছেলে হাসান ও হুসেনকেও দায়িত্বে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছে ।

এই নিয়ে তৃতীয়বার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে হচ্ছে নওয়াজকে। তার পদত্যাগের পর কে দায়িত্ব নেবেন তা এখনো পরিষ্কার নয়।তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, নওয়াজ সম্ভবত তার ভাই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজকে দল ও সরকার প্রধান হিসেবে মনোনয়ন দিবেন।